ফিদেল ক্যাস্ট্রোর পর চার দশকে প্রথম প্রধানমন্ত্রী পেল কিউবা

নবনিযুক্ত প্রধানমন্ত্রীকে (কালো কোট পরিহিত) অভিনন্দন জানাচ্ছেন রাউল ক্যাস্ট্রো (নীচের সারিতে) (Image: Reuters)

কিউবার প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল ডায়াস-ক্যানেল দেশটির পর্যটনমন্ত্রী ম্যানুয়েল ম্যারেরো ক্রুজকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ৪৩ বছর পর প্রধানমন্ত্রী পেল লাতিন আমেরিকার দেশটি।

কমিউনিস্ট শাসনাধীন কিউবার সংবিধানে চলতি বছর আনা সংশোধনীর মাধ্যমে চার দশক পর প্রধানমন্ত্রীর পদটি ফিরিয়ে আনা হয়। এখন থেকে নবনিযুক্ত প্রধানমন্ত্রী দেশটির প্রেসিডেন্টের হাতে থাকা বেশ কিছু নির্বাহী ক্ষমতার অধিকারী হবেন।

অবশ্য সমালোচকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রীর পদ পুনঃপ্রতিষ্ঠা করাটা আদতে প্রতীকী। কারণ দেশটির সব ক্ষমতাই কমিউনিস্ট পার্টি এবং সেনাবাহিনী, এই দুই প্রতিষ্ঠানের হাতে কুক্ষিগত।

কিউবার ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির সদস্যরা শনিবার নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ম্যানুয়েল ম্যারেরো ক্রুজের নিয়োগে অনুমোদন দেন।

ম্যানুয়েল ম্যারেরো কিউবার পর্যটন শিল্পে একটি গুরুত্বপূর্ণ নাম। ২০০০ সালে কিউবা সরকার তাকে রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত গাভিওটা পর্যটন গ্রুপের প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেয়। এই সংস্থাটির হোটেলগুলো বর্তমানে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মার্কিন প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছে।

পর্যটন খাতে ম্যানুয়েল ক্রুজের দক্ষতার স্বীকৃতিস্বরুপ ২০০৪ সালে তাকে কিউবার পর্যটনমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন ফিদেল ক্যাস্ট্রো। তারপর থেকেই দেশটির পর্যটন খাতে ব্যাপক প্রসার ঘটতে থাকে। নিজের যোগাযোগ দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে তিনি কিউবার পর্যটন শিল্পে দেশি-বিদেশি বিপুল বিনিয়োগ নিয়ে আসেন।

ধারণা করা হচ্ছে এসব সাফল্যের সুবাদেই ম্যানুয়েল ম্যারেরোর হাতে প্রধানমন্ত্রীর পদ তুলে দিল দেশটির শাসক গোষ্ঠী।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ম্যানুয়েল ম্যারেরোর নাম ঘোষণাকালে প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল ডায়াস-ক্যানেল তার ‘সততা, কর্মদক্ষতা এবং কমিউনিস্ট পার্টি ও কিউবার বিপ্লবের প্রতি আনুগত্যের’ প্রশংসা করেন। তিনি বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সাথে ম্যানুয়েলের ইতিবাচক সম্পর্কেরও ভূয়সী প্রশংসা করেন।

১৯৫৯ সালে কমিউনিস্ট বিপ্লবের মাধ্যমে তৎকালীন মার্কিনপন্থী সরকারকে হটিয়ে কিউবার ক্ষমতায় আসেন ফিদেল ক্যাস্ট্রো। নতুন প্রতিষ্ঠিত সরকারে নিজেকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা দেন ফিদেল।

১৯৭৬ সালে প্রধানমন্ত্রীর পদটি বিলুপ্ত করে রাষ্ট্রপতি এবং একইসাথে ক্ষমতাসীন কিউবান কমিউনিস্ট পার্টির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করা শুরু করেন ফিদেল ক্যাস্ট্রো।

কয়েক দশক কিউবাকে নেতৃত্ব দেওয়ার পর শারীরিক অসামর্থ্যের কারণে ২০০৬ সালে অনুজ রাউল ক্যাস্ট্রোর হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করে অবসরে যান ফিদেল। ২০১৬ সালে প্রয়াত হন তিনি।

বয়সের কারণে ২০১৮ সালে রাউল ক্যাস্ট্রোও প্রেসিডেন্টের পদ থেকে সরে দাঁড়ান। তবে এখনও তিনি কিউবান কমিউনিস্ট পার্টির প্রধানের পদে রয়েছেন। দেশটির নীতিনির্ধারণেও রাউলের রয়েছে প্রভাবশালী ভূমিকা।