নারীদের প্রতি অবমাননাকর মন্তব্যে দালাই লামার ক্ষমা প্রার্থনা

দালাই লামা (image: Reuters)

তিব্বতের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা দালাই লামা সম্প্রতি তার উত্তরসূরী হিসেবে কোন নারীর সম্ভাবনা নিয়ে যে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন, তার জন্য অবশেষে তিনি ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

৮৪ বছর বয়সী দালাই লামার অনুপস্থিতিতে কে তার স্থলাভিষিক্ত হবেন তা নিয়ে বেশ কয়েক বছর ধরেই আলোচনা চলছে। দালাই লামা নিজেও চান তার জীবদ্দশায়ই তিব্বতিদের নতুন নেতা নির্বাচন করিয়ে যেতে।

এ সপ্তাহেই ৮৪-তে পা দেওয়া নোবেল শান্তি পুরষ্কার জয়ী এই বৌদ্ধ ধর্মগুরু সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে খোলামেলা কথা বলছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট, তিব্বতের মাটিতে নিজের আবার ফিরে যাওয়ার স্বপ্ন, অভিবাসী সমস্যাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে।

সাক্ষাৎকারটিতে উঠে আসে দালাই লামার উত্তরাধিকারের প্রসঙ্গটিও। যেহেতু এই পদটিতে তিব্বতি জাতীয়তাবোধের সাথে সাথে বৌদ্ধ ধর্মবিশ্বাসেরও সম্পর্ক রয়েছে, তাই এ পদে কোন নারীর অধিষ্ঠীত হওয়ার সুযোগ আছে কিনা তা জানতে চাওয়া হয় তার কাছে।

জবাবে রসিকতা করে দালাই লামা উত্তর দেন, যদি এই পদে কোন নারী বসেন, তবে তাকে বেশ আকর্ষণীয় হতে হবে!

আর এই বক্তব্য নিয়েই সৃষ্টি হয় বিতর্কের। অনেকের মতে, এই মন্তব্যের মাধ্যমে নারীদের যোগ্যতাকে অপমান করেছেন দালাই লামা। তাদের প্রশ্ন, দালাই লামার কি তবে ধারণা, নারীরা তাদের যোগ্যতার বলে নয়, বরং আকর্ষণ করার ক্ষমতা দিয়ে উঁচু পদগুলোতে বসেন?

বিতর্কের আঁচ টের পেয়ে তা আর বাড়তে দিতে চাননি দালাই লামা। তার কার্যালয় থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে নারী বিষয়ক মন্তব্যটির জন্য দালাই লামা দুঃখ প্রকাশ করেছেন বলে জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, দালাই লামা সারা জীবন ধরে নারীদের বিরূদ্ধে যেকোন বৈষম্যের বিরোধিতা করেছেন এবং লিঙ্গ সমতাকে সমর্থন দিয়ে এসেছেন।