রাজপরিবারের ‘জ্যেষ্ঠ’ সদস্যের পদ থেকে হ্যারি ও মেগানের অব্যাহতি

মেগান মারকেল ও প্রিন্স হ্যারি (Image: Daniel Leal-Olivas, Reuters)

ব্রিটিশ যুবরাজ প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগা মারকেল রাজপরিবারের ‘জ্যেষ্ঠ’ সদস্যের পদমর্যাদা থেকে স্বেচ্ছায় সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। সাসেক্সের ডিউক ও ডাচেস জানিয়েছেন, তারা এখন থেকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য পদক্ষেপ নেবেন। এক বিবৃতিতে হ্যারি ও মেগান আরও বলেছেন, তারা ভবিষ্যৎে তাদের সময় যুক্তরাজ্য ও উত্তর আমেরিকায় ভাগ করে কাটাবেন।

বুধবার ইন্সটাগ্রামে সাসেক্সের রাজদম্পতির অফিশিয়াল পাতায় এক দীর্ঘ পোস্টে নিজেদের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান হ্যারি ও মেগান।

তারা লেখেন, “আমরা রাজপরিবারের ‘জ্যেষ্ঠ’ সদস্যের পদমর্যাদা থেকে অব্যাহতি নিতে এবং অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে মনস্থির করেছি”।

“আমরা এখন থেকে আমাদের সময় যুক্তরাজ্য ও উত্তর আমেরিকায় সমন্বয় করে কাটাবো, তবে অবশ্যই তা রাণী, কমনওয়েলথ ও আমাদের পৃষ্ঠপোষকদের প্রতি আমাদের দায়িত্ব অক্ষুণ্ণ রেখে”।

“এই ভৌগলিক ভারসাম্য একদিকে আমাদেরকে সাহায্য করবে আমাদের সন্তান যে রাজকীয় ঐতিহ্যে জন্ম নিয়েছে তার মর্যাদা নিয়ে তাকে বড় করতে, অন্যদিকে আমাদের জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় অবকাশ পেতে”।

সাসেক্সের রাজদম্পতির এই আকস্মিক সিদ্ধান্তে পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা ‘মর্মাহত’ হয়েছেন বলে জানাচ্ছে ব্রিটিশ গণমাধ্যমগুলো। সিদ্ধান্তটি নেওয়ার ব্যাপারে রাণী এলিজাবেথ বা প্রিন্স চার্লস কারও সাথেই হ্যারি ও মেগান আলোচনা করেননি বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

সাম্প্রতিক সময়ে রাজপরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মারকেলের বিভিন্ন বিষয়ে মতভেদের কথা শোনা যাচ্ছিল, তবে সেটি কোনরূপ তিক্ততাও নয় বলেই জানিয়ে এসেছে সূত্রগুলো। এবার রাজপরিবারের ‘জ্যেষ্ঠ’ সদস্যের পদ থেকে দুজনের সরে যাওয়াটাও সেই দূরত্বেরই বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করা হচ্ছে।

এবছরের বড়দিন হ্যারি ও মেগান রাজকীয় দায়িত্ব থেকে ছয় সপ্তাহের ছুটি নিয়ে ছেলে আর্চিকে নিয়ে কানাডায় পালন করেছেন। উল্লেখ, মার্কিন নাগরিক ও পেশায় অভিনেত্রী মেগান বিয়ের আগে কর্মসূত্রে অনেকটা সময় কানাডার টরেন্টোতে কাটিয়েছেন। সেখানে তার বেশকিছু বন্ধুও রয়েছে। খুব সম্ভবত একারণেরই হ্যারি ও মেগান তাদের বিবৃতিতে নতুন জীবন শুরুর জন্য ব্রিটেনের সাথে পুরো উত্তর আমেরিকার (যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার) উল্লেখ করেছেন।