সংসদ নির্বাচনেও ব্যাপক বিজয় ইউক্রেনের ‘কমেডিয়ান’ প্রেসিডেন্টের

সংসদ নির্বাচনেও ব্যাপক বিজয় পেলেন ইউক্রেনের ‘কমেডিয়ান’ প্রেসিডেন্ট
ভোলদেমায়ার জেলেনস্কি (Image : Reuters)

ইউক্রেনের নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, গত ২১ জুলাই অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনের সব ব্যালট পেপার গণনা করা শেষ হয়েছে এবং তাতে দেখা যাচ্ছে কয়েক মাস আগে দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়া ভোলদেমায়ার জেলেনস্কির দল ‘সারভেন্ট অব দ্য পিপল’ বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে।

২৬ জুলাই নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, কমেডিয়ান থেকে প্রেসিডেন্ট বনে যাওয়া জেলেনস্কির দল ৪৩.১৬ শতাংশ ভোট পেয়ে শীর্ষস্থান দখল করেছে। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা রাশিয়াপন্থী দল ‘ফর লাইফ’ পেয়েছে মাত্র ১৩.০৫ শতাংশ ভোট।

ইউক্রেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইউলিয়া তিমোশেঙ্কোর দল ‘ফাদারল্যান্ড’ ৮.১৮ শতাংশ ভোট পেয়ে আছে তৃতীয় স্থানে। সাবেক প্রেসিডেন্ট পেত্রো পোরশেঙ্কোর দল ‘ইউরোপীয়ান সলিডারিটি’ আছে চতুর্থ অবস্থানে ৮.১০ শতাংশ ভোট নিয়ে। আর দেশটির রক ব্যান্ড তারকা ভায়তোস্লাভ ভাকারচুকের দল ‘হোলোস’ ৫.৮০ শতাংশ ভোট নিয়ে রয়েছে পঞ্চম অবস্থানে।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, ভোট পড়ার হার ছিল ৪৯.২ শতাংশ।

ইউক্রেনের সংসদ ‘ভারখোভনা রাদা’ গঠিত হয় এক মিশ্র পদ্ধতিতে। সংসদের অর্ধেক আসনে ভোট হয় সরাসরি। আর বাকি অর্ধেক আসন নির্ধারিত হয় দলগুলোর প্রাপ্ত ভোটের আনুপাতিক হারে।

প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির দল আনুপাতিক হারে কতগুলো আসন পাবে, ইউক্রেনের নির্বাচন কমিশন আনুষ্ঠানিকভাবে এখনো তা ঘোষণা না করলেও ধারণা করা হচ্ছে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে যাচ্ছে দলটি। তেমনটি হলে দেশটির স্বাধীনতা উত্তর ইতিহাসে এই প্রথম কোন দল পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সংসদে বসবে।

ইউক্রেনের স্থানীয় গণমাধ্যম ধারণা দিচ্ছে, প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির দল ‘সারভেন্ট অব দ্য পিপল’ সংসদের ২৫৪টি আসন পেতে পারে, যেখানে প্রধান বিরোধীদল ‘ফর লাইফ’ পাবে ৪৩টি, ‘ফাদারল্যান্ড’ ২৬টি, ‘ইউরোপীয়ান সলিডারিটি পার্টি’ ২৫টি এবং ‘হোলোস’ ২০টি আসন নিয়ে সংসদে বসবে।

নির্বাচন কমিশন দলগুলোর জয়ী আসন ও আনুপাতিক হারে প্রাপ্ত আসনের পূর্ণাঙ্গ তালিকা আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করবে ৯ আগস্টের আগে আর সেই ঘোষণার এক মাসের মধ্যে বসবে নবগঠিত সংসদের প্রথম অধিবেশন।  

প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির দল ‘সারভেন্ট অব দ্য পিপল’ গঠিত হয় মাত্র কয়েক মাস আগে। এর মধ্যেই প্রথমে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন আর তারপর সংসদ নির্বাচনে নজরকাড়া এমন সাফল্য এখন চর্চা চলছে বিশ্বজুড়ে। নতুন একটি দলের পক্ষে কিভাবে সম্ভব হল এত অল্প সময়ে এত বড় দু’টি নির্বাচনী বিজয় ঘরে তোলা।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও ইউক্রেনের সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলে বোঝা গেল, জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে প্রথাগত রাজনৈতিক দল ও তাদের নেতাদের ব্যর্থতায় বিরক্ত হয়ে পড়েছিল জনগণ। বেশ কয়েক বছর ধরেই ইউক্রেনের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির গতি ছিল ধীর। অন্যদিকে পেশায় কমেডিয়ান জেলেনস্কি রাজনীতিতে নামার আগে প্রচলিত রাজনীতিবিদদের ব্যঙ্গ করে টেলিভিশনে একটি কমেডি শো চালাতেন। এতে মজার ছলে রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরা হত। এই অনুষ্ঠানটি পরবর্তীতে ‘ব্যতিক্রমী’ রাজনীতিবিদ হিসেবে জেলেনস্কির ভাবমূর্তি তৈরিতে সাহায্য করেছে। যার প্রভাব পড়েছে দু’টি নির্বাচনেরই ভোটবাক্সে।  

অবশ্য দেশটিতে কেউ কেউ সন্দিহান, তেল বাণিজ্যের মাফিয়াদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে আসা ইউক্রেনের রাজনৈতিক কাঠামো ভেঙ্গে প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি ঠিক কতখানি সংস্কার আনতে সক্ষম হবে।