আনুষ্ঠানিকভাবে অভিষিক্ত হলেন জাপানের নতুন সম্রাট নারুহিতো

অভিষেক অনুষ্ঠানে জাপানের নতুন সম্রাট নারুহিতো (Image: Reuters)

আনুষ্ঠানিকভাবে জাপানের সিংহাসনে অধিষ্ঠীত হলেন জাপানের সম্রাট নারুহিতো।

৫৯ বছর বয়সী নারুহিতো গত মে মাসেই সম্রাট হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেছিলেন, যখন তার পিতা সম্রাট আকিহিতো ২০০ বছরের মধ্যে প্রথম সম্রাট হিসেবে স্বেচ্ছায় সিংহাসন ত্যাগ করেন।

আর গতকাল কিয়োটোর রাজকীয় প্রাসাদে এক ঐতিহ্যবাহী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্রাট পদে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিষিক্ত হলেন তিনি।

সম্রাট নারুহিতোর সিংহাসনে আরোহনের আনুষ্ঠানিকতা এমন এক সময়ে সম্পন্ন হল, যার মাত্র কয়েকদিন আগে জাপানে আঘাত হানে বিধ্বঃসী টাইফুন ‘হাগিবিস’, যাতে প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় ৮০ জন।

হাগিবিসে নিহত, আহত ও ক্ষতিগ্রস্থ নাগরিক ও তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে সম্রাটের অভিষেক পরবর্তী পূর্বঘোষিত শোভাযাত্রার কর্মসূচী বাতিল করা হয়েছে।

সিংহাসনে আরোহনের অনুষ্ঠান, যা জাপানি ভাষায় ‘সোকুই নো রেই’ নামে পরিচিত, তার শুরুতে সম্রাট নারুহিতোকে দেখা যায় ৬.৫ মিটার উচ্চতার ঐতিহ্যবাহী ‘তাকামিকুরা’ সিংহাসনের ভেতরে। এটি কাঠ দিয়ে তৈরি কাঠামো ও পর্দা দিয়ে ঢাকা একটি ছোট বিশেষ কক্ষ।

অভিষেকের আনুষ্ঠানিকতা শুরুর আগে প্রথামাফিক কক্ষটির পেছনের পথ দিয়ে এর ভেতরে প্রবেশ করেন সম্রাট নারুহিতো। এসময় তার পরনে ছিল বাদামী রঙের ‘সোকুতাই’ গাউন আর মাথায় ‘কানমুরি’ টুপি। সম্রাটের হাতে ধরা ছিল কাঠের ‘শাকু’ রাজদন্ড।

সম্রাটের সিংহাসন কক্ষের পাশেই ঠিক একই রকম আরেকটি কক্ষে একইভাবে এসে উপস্থিত হন তার স্ত্রী নতুন সম্রাজ্ঞী মাসাকো। সম্রাজ্ঞীর পরনে ছিল ১২ স্তরের বিশেষ গাউন ‘জুনিহিতো’।

অনুষ্ঠান শুরুর নির্ধারিত সময়ে ‘তাকামিকুরা’ সিংহাসনের পর্দা সরিয়ে দেওয়া হলে সকলের সামনে দৃশ্যমান হন সম্রাট নারুহিতো ও সম্রাজ্ঞী মাসাকো। পুরোহিতদের একজন সম্রাটের হাত থেকে রাজদন্ড নিয়ে তার পরিবর্তে তুলে দেন অভিষেকের ঘোষণাপত্র। সম্রাট সেই ঘোষণাপত্র সবার সামনে পাঠ করেন।

সম্রাট পড়েন, “আমি প্রতিজ্ঞা করছি যে, আমি সংবিধান অনুযায়ী আমার কর্তব্য পালন করব এবং রাষ্ট্রের ও জাতির ঐক্যের প্রতীক হিসেবে আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করব।”

এরপর সম্রাট নারুহিতোর সামনে এসে দাঁড়ান জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। তিনি সম্রাটকে অভিনন্দন জানিয়ে তার উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। বক্তৃতা শেষে প্রধানমন্ত্রী আবে কয়েক পা পিছিয়ে গিয়ে সম্রাটের উদ্দেশ্যে কয়েকবার ঐতিহ্যবাহী ‘বানজাই’ স্লোগান দেন। প্রতিবারই তাকে অনুসরণ করে ওই কক্ষে উপস্থিত অন্যান্যরাও স্লোগানে গলা মেলান। জাপানি ভাষায় ‘বানজাই’ অর্থ ‘সম্রাট দীর্ঘজীবি হোন’।

এরপরই সমাপ্তি টানা হয় অভিষেক অনুষ্ঠানের।জাপানি রাজবংশের তিনটি প্রাচীন নিদর্শনকে রাজকীয় ক্ষমতার প্রতীক হিসেবে অত্যন্ত যত্নসহকারে সংরক্ষণ করা হয় দেশটির রাজপ্রাসাদে। সাধারণ জাপানিদের কাছে অত্যন্ত পবিত্র এই নিদর্শনগুলো হল প্রাচীন রাজাদের ব্যবহৃত একটি তলোয়ার, একটি রত্ন ও একটি আয়না। সম্রাট পরিবর্তনের সাথে সাথে এগুলো হস্তান্তর করা হয় পরবর্তী সম্রাটের কাছে।

মে মাসে নতুন সম্রাট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের সময়ও সম্রাট নারুহিতোর হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল মহামূল্যবান এই নিদর্শন তিনটি। গতকালের অভিষেক অনুষ্ঠানেও সম্রাট নারুহিতোর আসনের পাশে এগুলোর মধ্যে কাপড়ে মোড়া তলোয়ার ও রত্ন রাখা ছিল।

সম্রাট নারুহিতোর অভিষেক অনুষ্ঠানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাজা, রাণী, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীসহ উচ্চপদস্থ অতিথিরা অংশগ্রহণ করেন।অনুষ্ঠান শেষে নব অভিষিক্ত সম্রাট আমন্ত্রিত বিদেশি অতিথিদের সম্মানে চা-চক্রের আয়োজন করেন। আর সন্ধ্যায় নৈশভোজের আয়োজন করেন প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে।

একই উদ্দেশ্যে দু’টো অনুষ্ঠান আয়োজনের কারণ কী?

সদ্যবিদায়ী সম্রাট আকিহিতো স্বেচ্ছায় সিংহাসন ছেড়ে দিলেও সচরাচর কোন সম্রাটের মৃত্যুর মধ্য দিয়েই নতুন সম্রাটের আবির্ভাব ঘটে। সাংবিধানিক শূন্যতা এড়াতে প্রয়াত সম্রাটের মৃত্যুর পরপরই অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নতুন সম্রাটের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়।

এরপর যথেষ্ঠ সময় বিরতি দিয়ে তারপর আড়ম্বরপূর্ণ (‘সোকুই নো রেই’) অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ও সবার অংশগ্রহণে দ্বিতীয়বার দায়িত্ব গ্রহণ করেন নতুন সম্রাট। প্রয়াত সম্রাটের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের স্বার্থেই আড়ম্বরপূর্ণ এ আয়োজনটি সম্রাটের মৃত্যুর পরপরই না করে লম্বা বিরতি দিয়ে তারপর করা হয়।

উদাহরণস্বরূপ, সদ্য সিংহাসনত্যাগী সম্রাট আকিহিতোর নিজের ‘সোকুই নো রেই’ অনুষ্ঠানটি হয়েছিল তার পিতা সম্রাট হিরোহিতোর মৃত্যুর দীর্ঘ দুই বছর পর।

তবে আকিহিতো নিজে স্বেচ্ছায় সিংহাসন ত্যাগ করায় নতুন সম্রাট নারুহিতোর মে মাসে অনানুষ্ঠানিক দায়িত্ব গ্রহণের মাত্র পাঁচমাসের ভেতরেই ‘সোকুই নো রেই’ আয়োজন করা সম্ভব হল।

জাপানের নতুন সম্রাট নারুহিতোর অভিষেক অনুষ্ঠানের কিছু ঝলক :

অভিষেকের অনুষ্ঠানের শুরুতে নির্ধারিত বিশেষ সিংহাসন কক্ষে উপস্থিত হন সম্রাট নারুহিতো ও সম্রাজ্ঞী মাসাকো (Image: Reuters)
বিশেষ রাজকীয় পোশাকে সজ্জিত ছিলেন নতুন সম্রাট নারুহিতো (Image: Reuters)
নতুন সম্রাজ্ঞী মাসাকোর পরনেও ছিল বিশেষ রাজকীয় পোশাক (Image: Reuters)
এরপর বিশেষ সিংহাসন কক্ষে দাঁড়িয়ে অভিষেকের ঘোষণাপত্র পাঠ করেন সম্রাট নারুহিতো (Image: Reuters)
ঘোষণাপত্র পাঠের পর নতুন সম্রাটের সামনে ঐতিহ্যবাহী ‘বানজাই’ স্লোগান দেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে (Image: Reuters)
সম্রাটের সামনে উচ্চস্বরে ঐতিহ্যবাহী ‘বানজাই’ স্লোগান দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে (Image: Reuters)
প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ‘বানজাই’ স্লোগানে বাইরে থেকে গলা মেলান জাপানের মন্ত্রীসভার সদস্যরাও (Image: Reuters)
সম্রাটের অভিষেকের পর অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ ত্যাগ করছেন সম্রাজ্ঞী মাসাকো (Image: Reuters)
অভিষেক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন প্রিন্স চার্লসসহ অতিথিরা (Image: Reuters)
অভিষেক অনুষ্ঠানে আগত দেশি-বিদেশি অতিথিরা (Image: Reuters)
অভিষেক অনুষ্ঠানে আগত দেশি-বিদেশি অতিথিরা (Image: Reuters)
অভিষেক অনুষ্ঠানে আগত দেশি-বিদেশি অতিথিরা (Image: Reuters)
অভিষেক অনুষ্ঠানে আগত দেশি-বিদেশি অতিথিরা (Image: Reuters)
প্রাসাদের বাইরে উৎসুক অপেক্ষায় জাপানের সাধারণ মানুষ (Image: Reuters)