হুয়াই স্মার্টফোনে অ্যান্ড্রয়েড, ইউটিউব, জিমেইল নিষিদ্ধ করল গুগল

নতুন মোড় নিল যুক্তরাষ্ট্র-চীন সংঘাত। প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগল চীনের শীর্ষ স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হুয়াইয়ের নতুন ফোনগুলোতে অ্যান্ড্রয়েড অপেরেটিং সিস্টেম এবং জিমেইল, ম্যাপ, ইউটিউবের মত গুগল পরিষেবা যুক্ত না করার ঘোষণা দিয়েছে। একইসাথে পুরনো ফোনগুলোতেও এসব পরিষেবা আর আপগ্রেড না করারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

চীনের যেসব কোম্পানির সাথে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলো চীন সরকারের কাছ থেকে লাইসেন্স না নিয়ে ব্যবসা করতে পারেনা, সম্প্রতি তাদের একটা তালিকা তৈরি করে মার্কিন প্রশাসন। সেখানে চীনের জনপ্রিয় স্মার্টফোন প্রস্তুতকারক সংস্থা হুয়াইয়ের নাম যুক্ত করার পরপরই যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগলের তরফ থেকে এমন কড়া পদক্ষেপের ঘোষণা এল। ধারণা করা হচ্ছে, অল্প সময়েই বিশ্বজুড়ে যথেষ্ঠ জনপ্রিয়তা অর্জন করা হুয়াইয়ের উত্থান এতে বড় ধরনের ধাক্কা খেতে চলেছে।

আসল কারণও কি এটাই?

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিষয়টা যতটা না গুগল বনাম হুয়াই, তার চেয়েও বেশি মার্কিন বনাম চীন। যুক্তরাষ্ট্রসহ একাধিক পশ্চিমা দেশ বেশ কিছুদিন ধরেই সন্দেহ প্রকাশ করে আসছিল যে, হুয়াই স্মার্টফোনে ব্যবহৃত প্রযুক্তির মাধ্যমে চীন সরকার তাদের দেশে গোপনে নজরদারি চালাচ্ছে এবং স্পর্শকাতর তথ্য হাতিয়ে নিচ্ছে।

হুয়াই অবশ্য শুরু থেকেই এমন সন্দেহ উড়িয়ে দিয়েছে। তারা বলেছে, তাদের পণ্য বা প্রযুক্তি কোনোটাই কারও জন্য হুমকি নয়। তারা এও দাবি করেছে, চীন সরকারের সাথে তাদের কোম্পানির কোন সংযোগ নেই।

হুয়াইয়ের এমন দাবির পরও বেশ কিছু দেশ তাদের প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর ৫জি মোবাইল নেটওয়ার্কে হুয়াইয়ের পণ্য ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

কি প্রভাব পড়বে হুয়াই ব্যবহারকারীদের ওপর?

গুগলের এই ঘোষণায় হুয়াই স্মার্টফোনের নতুন ক্রেতারা যথেষ্টই ক্ষতিগ্রস্থ হবেন। কারণ তাদের ফোনে প্রথমত অ্যান্ড্রয়েড অপেরেটিং সিস্টেম থাকবেনা। অ্যান্ড্রয়েডের বিকল্প আর যেসব অপারেটিং সিস্টেম বাজারে রয়েছে, সেগুলোর কোনটিই ধারে-ভারে অ্যান্ড্রয়েডের সাথে তুলনীয় নয়। দ্বিতীয়ত, ভিডিও দেখা ও শেয়ার করার সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রোগ্রাম ইউটিউব, পৃথিবীর যেকোন স্থানের পথনির্দেশিকা পাওয়ার সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য অ্যাপ গুগল ম্যাপস, ইমেইল পাঠানোর সর্বাধিক ব্যবহৃত প্লাটফর্ম জিমেইলসহ গুগল পরিচালিত আরও বেশকিছু প্রথম সারির অ্যাপ্লিকেশন থেকেও বঞ্চিত হবেন নতুন হুয়াই ক্রেতারা। ক্ষতির শিকার হবেন হুয়াইয়ের পুরনো ব্যবহারকারীরাও। তাদের স্মার্টফোনে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম আগে থেকেই আছে ঠিকই, কিন্তু এটি আর আপগ্রেড করার সুযোগ থাকবেনা বলে যতই দিন যাবে ততই ব্যবহারকারীর কাছে এটি পুরনো থেকে আরও পুরনো হতে থাকবে।

কতটা ক্ষতিগ্রস্থ হবে হুয়াই নিজে?

নিঃসন্দেহে গুগলের এই শাস্তিমূলক পদক্ষেপ বিশ্বব্যাপী হুয়াইয়ের সাম্প্রতিক উত্থানের পথে বড়সড় বাধা হয়ে দাঁড়াবে।

নিষেধাজ্ঞার শুরুটা যেহেতু যুক্তরাষ্ট্রে, ফলে স্বাভাবিকভাবেই দেশটির বাজারে হুয়াইয়ের পথচলা কার্যত একপ্রকার থমকে যেতে চলেছে। একই রকম বিরূপ পরিস্থিতি হয়ত অপেক্ষা করছে ইউরোপের বাজারেও। আর এত বড় দু’দুটো বাজার হারানো সেরা হওয়ার স্বপ্ন দেখা যেকোন কোম্পানীর জন্য দুঃস্বপ্ন ছাড়া আর কি!

ধাক্কা আসবে ক্রেতাদের তরফ থেকেও। অ্যান্ড্রয়েডের মত অপারেটিং সিস্টেম আর জিমেইল, ইউটিউব, ম্যাপের মত সেরা সব অ্যাপবিহীন স্মার্টফোন কতজন গ্রাহক কিনতে চাইবেন, সন্দেহ থেকে যায়। ফলে বিশ্বজুড়ে হুয়াইয়ের বিক্রি যে বড়সড় মার খেতে যাচ্ছে, তা বলাই বাহল্য।

সবকিছু বিবেচনায় নিলে এটা স্পষ্ট, স্যামসংকে পেছনে ফেলে ২০২০ সালের মধ্যে পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি বিক্রিত স্মার্টফোন হওয়ার যে লক্ষ্য হুয়াই নির্ধারণ করেছিল, তা পড়ে গেল চরম অনিশ্চয়তার গর্তে।

পরিস্থিতি কিভাবে সামাল দেবে হুয়াই?

গুগলের এই আকস্মিক পদক্ষেপে কিছুটা চাপে পড়ে গেলেও হুয়াইয়ের প্রধান নির্বাহী রেন ঝেংফেই দাবি করেছেন, তারা এই পরিস্থিতি মোকাবেলার কাজ শুরু করে দিয়েছেন। তিনি জানান, তার প্রতিষ্ঠান প্রতি বছর ৬৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের স্মার্টফোনের যন্ত্রাংশ ও প্রযুক্তি বাইরে থেকে আমদানি করে থাকে। এখন তারা এসব যন্ত্রাংশ ও প্রযুক্তি যতটা সম্ভব নিজেরাই তৈরি করার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছেন।

জানা গেছে, গুগল অ্যাপ স্টোরের আদলে হুয়াইও তাদের নিজস্ব অ্যাপ গ্যালারি তৈরির কাজে হাত দিয়েছে। একইসাথে অ্যান্ড্রয়েডের সমমানের অপারেটিং সিস্টেম তৈরিও তাদের এখনকার অগ্রাধিকারের তালিকায় রয়েছে।