শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন গোতাভায়া রাজাপাকসে

সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দ্রা রাজাপাকসের (বামে) সাথে তার ভাই শ্রীলংকার নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট গোতাভায়া রাজাপাকসে (Image: Reuters, Dinuka Liyanawatte)

দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন দেশটির সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী গোতাভায়া রাজাপাকসে। ৭০ বছর বয়সী এই নেতা দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দ্রা রাজাপাকসের ভাই।

শ্রীলঙ্কার সংখ্যালঘু তামিল বিদ্রোহীদের সাথে তিন দশক ধরে চলা গৃহযুদ্ধের অবসান হয়েছিল প্রেসিডেন্ট মাহিদ্রা রাজাপাকসের শাসনামলে। তার সরকারেই প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন দেশটির নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট গোতাভায়া রাজাপাকসে।

শ্রীলঙ্কার নির্বাচন কমিশন থেকে পাওয়া তথ্যমতে, বিজয়ী গোতাভায়া রাজাপাকসে পেয়েছেন প্রদত্ত ভোটের ৫২.২৫ শতাংশ। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী সাজিথ প্রেমাদাসা পেয়েছেন ৪১.৯৯ শতাংশ।

সাজিথ প্রেমাদাসা পরাজয় স্বীকার করে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্টকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এবছরের ইস্টার সানডের দিন সংঘটিত ভয়াবহ বোমা হামলায় ২৫৩ জন নিহত হওয়ার সাত মাসের মাথায় এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হল। ঐ ঘটনার প্রেক্ষিতে এবারের নির্বাচনে অন্যান্য বিষয় ছাপিয়ে মূল ইস্যু হয়ে দাঁড়ায় জাতীয় নিরাপত্তা।

নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট গোতাভায়া রাজাপাকসে নিরাপত্তা ইস্যুতে তার কঠোর অবস্থানের জন্য পরিচিত। সামরিক অভিযানে তামিল বিদ্রোহীদের সাথে গৃহযুদ্ধ অবসানের অনেকটা কৃতিত্ব তাকেই দেওয়া হয়। কারণ প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে সামরিক বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ সেসময় তার হাতেই ছিল।

পরাজয় মেনে নিয়েছেন প্রধান বিরোধী প্রার্থী সাজিথ প্রেমদাসা (Image: Reuters, Dinuka Liyanawatte)

তবে সেই অভিযানে বিদ্রোহীদের সাথে বহু বেসামরিক তামিল নাগরিকও নিহত বা নিখোঁজ হন। তাতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের গুরুতর অভিযোগ ওঠে শ্রীলঙ্কার সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে। আর তৎকালীন প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে গোতাভায়াও মানবাধিকার লঙ্ঘনের সেসব ঘটনায় জড়িত বলে দাবি করে আসছে ভূক্তভোগী তামিল সম্প্রদায় ও দেশি-বিদেশি মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

তবে গোতাভায়া রাজাপাকসে শুরু থেকেই নিজের বিরুদ্ধে ওঠা মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগগুলো অস্বীকার করে এসেছেন।

শ্রীলংকা জাতিগতভাবে বরাবরই সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সিংহলি ও সংখ্যালঘু হিন্দু তামিলদের মধ্যে বিভক্ত। রাজনীতিতেও এর প্রভাব এসে পড়েছে সবসময়।

কঠোর হাতে তামিল বিদ্রোহীদের দমন এবং সাধারণ তামিলদের ওপরও দমন-পীড়নের অভিযোগের কারণে রাজাপাকসে পরিবারের প্রতি তামিল জনগোষ্ঠীর রয়েছে নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি। তবে একই কারণে সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলিদের আকুন্ঠ সমর্থন রয়েছে এই পরিবারটির দিকে।

নির্বাচনের দেশব্যাপী ফলাফল বিশ্লেষণ করেও দেখা গেছে, সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ সিংহলি অধ্যুষিত অঞ্চলগুলোতে বেশি ভোট পেয়েছেন গোতাভায়া রাজাপাকসে। অন্যদিকে সংখ্যালঘু হিন্দু তামিল ও মুসলিম এলাকায় ভাল ফল করেছেন প্রতিদ্বন্দী সাজিথ প্রেমাদাসা।

গোতাভায়া রাজপাকসে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই তাই দুশ্চিন্তাগ্রস্থ সংখ্যালঘু তামিল ও মুসলিম সম্প্রদায়।

এদিকে নির্বাচনে ফল ঘোষণার পরে এক টুইট বার্তায় গোতাভায়া রাজাপাকসে দেশবাসীকে অভিনন্দন জানিয়েছন।

নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী সাজিথ প্রেমাদাসা পূর্ণাঙ্গ ফলাফল আসার আগেই পরাজয় মেনে নিয়েছেন। তিনি প্রতিপক্ষ গোতাভায়াকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

প্রেমাদাসা বলেন, “জনগণের সিদ্ধান্তকে সন্মান জানাই আমি। আমি গোতাভায়া রাজাপাকসেকে শ্রীলংকার সপ্তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন জানাচ্ছি”।

শ্রীলংকার নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৮৩.৭ শতাংশ। গোতাভায়া রাজাপাকসে সোমবারই প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন বলে জানা গেছে।