নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেও সরকার গড়তে ব্যর্থ হলেন বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেও সরকার গড়তে ব্যর্থ হলেন বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু
বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু, এক বছরে দু'বার নির্বাচন করেও ফিরতে পারছেন না ক্ষমতায় (Image: Reuters)

টানা এক দশক ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর ক্ষমতা ছাড়তে হচ্ছে বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুকে।

সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত দেশটির সাধারণ নির্বাচনে নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টি নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হয়। এমনকি মাত্র এক আসনের ব্যবধানে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতাও পায়নি দলটি। তারপরও নেতানিয়াহুকেই অন্যদের সমর্থন নিয়ে সরকার গড়ার সুযোগ দেন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

তবে কয়েক সপ্তাহের চেষ্টার পরও প্রয়োজনীয় সংখ্যক সাংসদের সমর্থন জোগাড় করতে ব্যর্থ হন তিনি। এর পরপরই বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু ঘোষণা দেন তার দল লিকুদ পার্টির সরকার গঠন করতে না পারার কথা।

এর ফলে এখন নির্বাচনে নেতানিয়াহুর প্রধান প্রতিপক্ষ বেনি গ্যান্টজকে সরকার গড়ার আমন্ত্রণ জানাবেন প্রেসিডেন্ট। গ্যান্টজের দল ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টিও যদি প্রয়োজনীয় সমর্থনের অভাবে সরকার গড়তে না পারে, সেক্ষেত্রে কয়েক সপ্তাহের বিরতি দিয়ে আবারও সাধারণ নির্বাচনের আয়োজন করা হবে ইসরায়েলে।

এর আগে বেনি গ্যান্টজকেও সাথে নিয়ে সরকার গঠনের উদ্যোগ নিয়েছিলেন বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। তার বক্তব্য ছিল, প্রতিপক্ষ হলেও নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি আসন জেতা দুই দল তার লিকুদ পার্টি ও গ্যান্টজের ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টি একসাথে মিলে সরকার গঠন করলে, সেই সরকার হবে শক্তিশালী এবং দীর্ঘস্থায়ী।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত গ্যান্টজের দলকে রাজি করাতে পারেননি নেতানিয়াহু।

সে প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সরকার গড়তে না পারার ঘোষণা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বলেন, “বেনি গ্যান্টজকে আলোচনার টেবিলে আনতে, দু’দল মিলে একটি বড় জাতীয় ঐক্যের সরকার গড়তে এবং আরেকটি সাধারণ নির্বাচন এড়াতে সবরকম চেষ্টাই আমি করেছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে তিনি সেসব প্রত্যাখ্যান করেছেন।”

নেতানিয়াহুর এই ঘোষণার পর ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট রেভেন রিভলিন জানিয়েছেন, তিনি বেনি গ্যান্টজকে ২৮ দিন সময় দেবেন সরকার গঠনের জন্য।

তবে নেতানিয়াহু সরকার গড়ার দাবি ছেড়ে দিয়েছেন বলে বেনি গ্যান্টজের জন্য তা করাটা যে খুব সহজ হয়ে যাবে, তাও নয়। ১২০ আসনের ইসরায়েলি সংসদে সরকার গড়তে প্রয়োজন ৬১ জন সাংসদ। মধ্য-ডানপন্থী ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টিকে ইসরায়েলের আরব বংশোদ্ভূত সংসদ সদস্যরা সমর্থনের ঘোষণা দিলেও এখনও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা থেকে বেশ কয়েকটি আসন দূরে রয়েছে গ্যান্টজের দল।

আগামী ২৮ দিন বাকি সংসদ সদস্যদের মধ্য থেকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক সমর্থন জোগাড় করাটাই হবে বেনি গ্যান্টজের জন্য প্রধান চ্যালেঞ্জ।

ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট রেভেন রিভলিন বলেছেন, তিনি আরেকটি সাধারণ নির্বাচন এড়ানোর জন্য সব চেষ্টাই করবেন। কারণ চলতি বছরে এরই মধ্যে দু’বার সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট আরও জানান, যদি কোন কারণে বেনি গ্যান্টজও সরকার গড়তে ব্যর্থ হন, সেক্ষেত্রে তৃতীয় কাউকে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য বিবেচনায় নিয়ে তার প্রতি বড় দলগুলোর সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করা হবে।

সেপ্টেম্বরে হয়ে যাওয়া ইসরায়েলের সাধারণ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর দল লিকুদ পার্টি পায় ৩২ আসন আর বেনি গ্যান্টজের ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টি পায় ৩৩ আসন।

একক সংখ্যাগরিষ্ঠ না হওয়া স্বত্তেও নেতানিয়াহুকেই সরকার গড়ার ডাক দেন প্রেসিডেন্ট রিভলিন। এ নিয়ে বিতর্কও সৃষ্টি হয়েছিল সেসময়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নেতানিয়াহুও সরকার গড়তে ব্যর্থ হলেন।

বেনি গ্যান্টজ ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর প্রাক্তন প্রধান। প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর অধীনেই তিনি এই পদে বসেছিলেন। মাত্র কয়েক মাস আগে এবছরের ফেব্রুয়ারিতে তিনি তার দল ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টি গঠন করেন।

অন্যদিকে গত টানা ১০ বছর এবং তার আগে আরও ৩ বছর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা অনেক। কিন্তু দূর্নীতি ও প্রতারণার একাধিক অভিযোগে বেশ কিছুদিন ধরেই কোনঠাসা হয়ে আছেন এই নেতা। এমনকি তার স্ত্রীর বিরুদ্ধেও রয়েছে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ।

মূলত এসব কারণেই মাত্র কয়েক মাসের নবীন দল ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টির কাছে নির্বাচনী দৌড়ে ধাক্কা খায় কয়েক দশকের পুরনো লিকুদ পার্টি।