ব্রিটিশ রাজপরিবারে নতুন অতিথি, বাবা হলেন প্রিন্স হ্যারি

প্রথম সন্তানের পিতামাতা হলেন ব্রিটিশ যুবরাজ প্রিন্স হ্যারি এবং তার স্ত্রী মেগান মারকেল।

দীর্ঘ কয়েক মাস প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে ব্রিটিশ রাজপরিবারে যোগ দিল নতুন সদস্য। ডিউক অব সাসেক্স প্রিন্স হ্যারি ও মার্কিন অভিনেত্রী ডাচেস অব সাসেক্স মেগান মারকেলের কোলজুড়ে এল পুত্রসন্তান।

উৎফুল্ল প্রিন্স হ্যারি সংবাদমাধ্যমকে জানান, তিনি ‘খুবই উত্তেজিত’ বোধ করছেন, একইসাথে দেশের জনগণকে ধন্যবাদ জানান তাদের পাশে থাকার জন্য।

ডিউক অব সাসেক্স জানান, মেগান এবং তাদের নবাগত সন্তান দু’জনেই সুস্থ আছেন। স্থানীয় সময় ভোর ৫ টা ২৬ মিনিটে ভূমিষ্ঠ হওয়া শিশুপুত্রের নাম এখনও ঠিক করা হয়নি বলে জানান হ্যারি।

বাকিংহাম প্যালেসের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ভূমিষ্ঠ শিশুটির ওজন ৩.২ কেজি। প্রিন্স হ্যারি সন্তানের জন্মের সময় উপস্থিত ছিলেন সেখানে।

প্রিন্স হ্যারির সন্তান হতে যাচ্ছে ব্রিটিশ সিংহাসনের সপ্তম সম্ভাব্য উত্তরসূরী। তার আগে রয়েছেন রাণী এলিজাবেথের ছেলে প্রিন্স চার্লস, চার্লসের দুই ছেলে প্রিন্স উইলিয়াম ও প্রিন্স হ্যারি এবং উইলিয়ামের তিন সন্তান প্রিন্স জর্জ, প্রিন্সেস শার্লেট ও প্রিন্সেস লুইস।

সাংবাদিকরা যখন প্রিন্স হ্যারির কাছে তার অনুভূতি জানতে চান, হ্যারি রসিকতা করে উত্তর দেন, “আমি অন্য কারও জন্মের সময় খুব একটা উপস্থিত থাকিনি। এটাই আমার প্রথম! এটা সত্যিই অসাধারণ। আর আমি আমার স্ত্রীর জন্য খুবই গর্বিত। মা হওয়ার জন্য একজন নারী যে ত্যাগ স্বীকার করেন তার তুলনা করা অসম্ভব।’’

উৎফুল্ল রাণীও

প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মারকেলের প্রথম সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর প্রথামাফিক কাঠের ফ্রেমে বাধানো একটি বিবৃতি বাকিংহাম প্রাসাদের সামনের প্রাঙ্গনে স্থাপন করা হয়, এটি সেখানে রাখা থাকবে সোমবার রাত ৮টা পর্যন্ত। বিবৃতিতে জানানো হয়, “রাণী এলিজাবেথ, তার স্বামী প্রিন্স ফিলিপসহ রাজপরিবারের সকল সদস্যকে এই সুসংবাদ জানানো হয়েছে এবং প্রত্যেকেই ভীষণ আনন্দিত হয়েছেন।’’  

প্রথামাফিক বাকিংহাম প্রাসাদের বাইরের প্রাঙ্গণে কাঠের ফ্রেমে রাজপরিবারের নবাগত সদস্যের আগমনের বিবৃতি টাঙিয়ে দেওয়া হয় (Image : AFP)

মেগান মারকেলের মা ডোরিয়া রেগল্যান্ড দৌহিত্রের জন্মের সময় মেগানের পাশেই ছিলেন। আর মেগানের বাবা থোমাস মেরকেল তার মেক্সিকোর বাড়ি থেকে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, “আমি খুবই খুশি যে ব্রিটিশ রাজপরিবারে আমার নাতির জন্ম নিয়েছে। আমি নিশ্চিত সে আভিজাত্য ও সন্মানের সাথে ব্রিটেনের মুকুট ও জনগণের সেবা করবে।’’

প্রয়াত প্রিন্সেস ডায়ানার ভাই চার্লস স্পেনসার এক টুইট বার্তায় লেখেন, “সত্যিই দারুণ এক খবর আজ, অনেক অনেক অভিনন্দন।’’  

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে তার টুইট বার্তায় লেখেন, “অভিনন্দন ডিউক এবং ডাচেস অব সাসেক্সকে তাদের পুত্রসন্তানের আগমনে। এই আনন্দের সময়ে তাদের জন্য রইল শুভ কামনা।’’

বিরোধী দলনেতা জেরেমি করবিনও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মেগান ও হ্যারিকে।

এদিকে প্রিন্স হ্যারি ব্রিটিশ এবং মেগান মেরকেল মার্কিন নাগরিক হওয়ার সুবাদে তাদের নবাগত সন্তান ব্রিটেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ নাগরিকের মর্যাদা পেতে চলেছে, ব্রিটিশ রাজপরিবারের সুদীর্ঘ ইতিহাসে যা বিরল এক ঘটনা।

হ্যারি ও মেগান, টাইমলাইন

৮ নভেম্বর ২০১৬ : কেনসিংটন প্রাসাদ এক বিবৃতিতে প্রথমবারের মত জানায় যে প্রিন্স হ্যারি ‘কয়েক মাস ধরে’ প্রেম করছেন মার্কিন অভিনেত্রী মেগান মারকেলের সাথে। গণমাধ্যমকে অনুরোধ জানানো হয় তাদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে।

২৮ নভেম্বর ২০১৭  : হ্যারি ও মেগান নিজেরা প্রথমবারের মত তাদের সম্পর্কের কথা ঘোষণা করেন এবং জানান যে তারা বিয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ : কেনসিংটন প্রাসাদ জানায় যে পরের বছর ১৯ মে প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মেরকেলের বিয়ে হবে উইন্ডসর প্রাসাদে।

১৯ মে ২০১৮ : উইন্ডসর প্রাসাদের সেন্ট জর্জস চ্যাপেলে ৬০০ অতিথির সামনে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মেরকেল। বিয়ের পর তাদের আনুষ্ঠানিক উপাধি হয় ডিউক অব সাসেক্স ও ডাচেস অব সাসেক্স।

১৫ অক্টোবর ২০১৮ : মেগান মেরকেলের অন্তঃস্বত্তা হওয়ার কথা ঘোষণা করে কেনসিংটন প্রাসাদ। আরও জানানো হয় সম্ভাব্য ২০১৯ এর বসন্তে মা হতে পারেন ডাচেস অব সাসেক্স। ৬ মে ২০১৯ – সব প্রতিক্ষার অবসানে ঘটিয়ে ভূমিষ্ঠ হয় প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মেরকেলের প্রথম সন্তান, ব্রিটিশ রাজসিংহাসনের সপ্তম দাবিদার।