হোমপেজ ইউরোপ করোনা উপসর্গ তীব্র হওয়ায় আইসিইউতে বরিস জনসন

করোনা উপসর্গ তীব্র হওয়ায় আইসিইউতে বরিস জনসন

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন (Image: Reuters)

করোনায় আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে হাসপাতালের ‘নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র’ বা আইসিইউ-তে নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর ১০ ডাউনিং স্ট্রীটের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মেডিকেল টিমের পরামর্শে বরিস জনসনকে আইসিইউ-তে স্থানান্তর করা হয়।

ডাউনিং স্ট্রীট জানিয়েছে, আইসিইউ-তে যাওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী জনসন তার দৈনন্দিন রাষ্ট্রীয় কাজে প্রয়োজনীয় তদারকির জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাবকে নির্দেশনা দিয়ে যান। দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি সনাক্তের দেড় সপ্তাহ পরও উপসর্গগুলো বিদ্যমান থাকায় সতর্কতা হিসেবে রবিবার সন্ধ্যায় বরিস জনসনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

৫৫ বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে রাণী এলিজাবেথকে নিয়মিতভাবে অবগত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে বাকিংহাম প্যালেস।

আইসিইউ-তে নেওয়ার আগে সোমবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী জনসনকে অক্সিজেন দিতে হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে তাকে ভেন্টিলেটরে রাখার প্রয়োজন হয়নি।

ডাউনিং স্ট্রীটের বিবৃতিতে বলা হয়, “চিকিৎসকদের পরামর্শে রবিবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীকে লন্ডনের সেন্ট থমাস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সোমবার দুপুর নাগাদ তার অবস্থার অবনতি ঘটলে মেডিকেল টিমের পরামর্শে তাকে হাসপাতালের আইসিইউ-তে স্থানান্তর করা হয়।”

ব্রিটেনের বিরোধীদলীয় নেতা ও লেবার পার্টির প্রধান কেইর স্টামার প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে আইসিইউ-তে নেওয়ার খবরে বলেন, “এটি ভয়ংকর একটি দুঃসংবাদ। পুরো দেশের শুভকামনা এই কঠিন সময়ে প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের সাথে রয়েছে।”

এর আগে বরিস জনসনের হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রেক্ষিতে তার সুস্থতা কামনা করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি প্রধানমন্ত্রী জনসনকে নিজের ‘ভাল বন্ধু’ ও ‘মহান নেতা’ হিসেবে উল্লেখ করে সকল মার্কিন নাগরিক তার সুস্থতার জন্য প্রার্থনা করছেন বলে মন্তব্য করেন।