Home ইউরোপ ইতালিতে মৃত্যু ছাড়াল ইউরোপীয় ইউনিয়নে সর্বোচ্চ ৩০,০০০

ইতালিতে মৃত্যু ছাড়াল ইউরোপীয় ইউনিয়নে সর্বোচ্চ ৩০,০০০

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সংহতি প্রকাশ করে ইতালির জাতীয় পতাকার আদলে আলোকিত করা হয় রাজধানী রোমের টাউন হল (Image: Reuters)

নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু দেখল ইতালি। দেশটিতে আজ মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩০,০০০। ব্রিটেনে মৃতের সংখ্যা এর চেয়েও বেশি। তবে দেশটি ইইউ থেকে বেরিয়ে যাওয়ায় আঞ্চলিক জোটটিতে ইতালিই এখন কোভিড-১৯ এ সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ দেশ।

বৈশ্বিকভাবেও মৃতের সংখ্যার দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের পরেই তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ইতালি।

শুক্রবার দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও ২৪৩ জনের মৃত্যু হয়। আগের দিন সংখ্যাটি ছিল ২৭৪। এই নিয়ে ইতালিতে সব মিলিয়ে মারা গেলেন ৩০,২০১ জন।

আক্রান্তের তালিকায় শুক্রবার নতুন করে যুক্ত হন ইতালির ১,৩২৭ জন নাগরিক। দেশটিতে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২১৭,১৮৫।

এর আগে ব্রিটেনে মৃতের সংখ্যা ৩০,০০০ ছাড়ায় গত বুধবার। ইউরোপে তৃতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে স্পেনে ২৬,০০০ জনের।

গত ফেব্রুয়ারিতে দেশের উত্তর অংশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর এর সংক্রমণ ঠেকাতে ইতালিই ইউরোপের প্রথম দেশ হিসেবে লকডাউনের উদ্যোগ নেয়। কয়েক মাস কঠোর বিধিনিষেধ বলবৎ থাকার পর সম্প্রতি দেশটিতে লকডাউন কিছুটা শিথিল করা হয়েছে।

এ সপ্তাহেই ইতালির নাগরিকেরা প্রথমবারের মত বাইরে বের হওয়ার সুযোগ পান, এতদিন যা কেবল জরুরি প্রয়োজনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। তবে ঘরের বাইরে তাদেরকে নিজেদের মধ্যে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হয়েছে। যেখানে দূরত্ব রাখা কঠিন সেখানে পড়তে হয়েছে মাস্ক। এছাড়া তাদেরকে শুধু স্বজনদের সাথে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে, বন্ধুদের সাথে নয়, আর তাও কেবল নিজেদের এলাকা্তেই।

ধর্মীয় উপাসনালয়গুলোকে সামাজিক দূরত্ব মেনে ও মাস্ক পরে তাদের কার্যক্রম চালাতে বলা হয়েছে। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সিনেমা হল, দোকানপাট এখনও বন্ধই থাকবে। যেকোন জমায়েত নিষিদ্ধ থাকছে। বার ও রেস্তোরাগুলো জুন মাসে খুলে দেওয়া হবে জানিয়েছে ইতালির সরকার।

তবে সামজিক দূরত্বের নিয়মকানুন এখনও বেশিরভাগ এলাকায় বহাল থাকলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন ছবিতে দেশের ব্যস্ত এলাকাগুলোতে সাধারণ মানুষকে জটলা পাকিয়ে ঘু্রে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে, মাস্কও নেই তাদের অধিকাংশের মুখে। এটি নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছে ইতালির সরকার।

দেশটির স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, লকডাউন শিথিল করাটা সামনের দিনগুলোতে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এরই মধ্যে করোনায় আক্রান্ত বিপুল সংখ্যক মানুষ সমাজে নিয়ন্ত্রণহীনভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

সমালোচনার জেরে ইতালি সরকার জানিয়েছে, তারা পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি ঘটলে লকডাউনের বিধিনিষেধ আবারও কঠোর করে দেওয়া হবে। রাজধানী রোমের পুলিশ বিভাগ বলছে, তারা সমুদ্র সৈকত, হ্রদ ও অন্যান্য জনপ্রিয় ভ্রমণ এলাকায় যাওয়ার রাস্তাগুলোতে তল্লাশি চৌকি বসাতে যাচ্ছেন।