হোমপেজ এশিয়া ভয়াবহ আগুনে ধ্বংস হয়ে গেল জাপানের ঐতিহাসিক সুরি প্রাসাদ

ভয়াবহ আগুনে ধ্বংস হয়ে গেল জাপানের ঐতিহাসিক সুরি প্রাসাদ

ভয়াবহ এক আগুনে পুড়ে ধ্বংস হয়ে গেল জাপানের প্রাচীন সুরি প্রাসাদ। ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় থাকা প্রাসাদটি দেশটির ওকিনাওয়া প্রদেশে অবস্থিত।

দমকল বাহিনীর কর্মীরা প্রায় ১০ ঘন্টার চেষ্টার পর বৃহস্পতিবার দুপুর নাগাদ আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হলেও ততক্ষণে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে প্রাসাদটির মূল কাঠামোর প্রায় পুরোটাই।

অগ্নিকান্ডে কারো আহত বা নিহত হওয়ার খবর এখনও পাওয়া যায়নি।

প্রায় ৫০০ বছর আগে নির্মিত কাঠের এই প্রাসাদটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ও একবার ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। পরবর্তীতে পুরো প্রাসাদটিই পূনঃনির্মাণ করা হয়।

১৯৭০ সাল পর্যন্ত প্রাসাদটি ওকিনাওয়ার সর্ববৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস হিসেবে ব্যবহৃত হত। পরবর্তীতে এটিকে পর্যটন স্থাপনা হিসেবে উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়।

অগ্নিকান্ডের বিস্তারিত

ভয়াবহ এই অগ্নিকান্ডটির সূত্রপাত হয় বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় রাত ২ টা ৪০ মিনিটে। অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত কিভাবে হয়েছিল সে সম্পর্কে এখনও সুনির্দিষ্টভাবে কিছু জানা যায়নি।

আগুন লাগার পরপরই দমকল বাহিনীকে খবর দেওয়া হলে তাদের প্রায় ১০০ সদস্য সেখানে ছুটে আসেন। তবে বাতাসের তীব্র বেগের কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা তাদের জন্য দূরহ হয়ে পড়ছিল বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত স্থানীয় একজন পুলিশ অফিসার।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টা ৩০ মিনিট নাগাদ আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয় দমকলের কর্মীরা। কিন্তু তার আগেই প্রাসাদের সাতটি প্রধান ভবনের সবক’টিই ভস্মীভূত হয়ে যায়।

জাপানের প্রাচীন রিয়ুকু রাজবংশের প্রধান কেন্দ্র হিসেবে স্থাপিত সুরি প্রাসাদটি ওকিনাওয়ার রাজধানী নাহার একটি পাহাড়ের ওপর নির্মাণ করা হয়েছিল। প্রাসাদটি চারদিকে পাথরের দেয়াল দিয়ে ঘেরা।

প্রাসাদটির ভ্রমণ বিয়ষক ওয়েবসাইটের বর্ণনায় বলা আছে যে এটি রিয়ুকু শাসনামলেই তিনবার বড়ধরনের অগ্নিকান্ডের শিকার হয়েছিল। আর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন ‘ওকিনাওয়ার যুদ্ধে’ প্রাসাদটি প্রায় পুরোটাই ধ্বংস হয়ে যায়।

বৃহস্পতিবারের আগুনে ভেঙ্গে পড়ার আগ পর্যন্ত সুরি প্রাসাদই ছিল ওকিনাওয়া প্রদেশে কাঠের তৈরি সবচেয়ে বড় স্থাপনা। ২০২০ সালে জাপানে অনুষ্ঠিতব্য অলিম্পিকের মশাল র‍্যালির রুটের অন্যতম গন্তব্য হিসেবে সুরি প্রাসাদকেও নির্ধারণ করা হয়েছিল।

এক জীবনে দু’বার ধ্বংসের সাক্ষী সুরি প্রাসাদ

জাপানের ইতিহাসে রিয়ুকু শাসনামল পরিচিত সমুদ্রপথে ব্যাপক বাণিজ্য এবং বিভিন্ন দেশের সাথে সংযোগ স্থাপনের জন্য। আর সেই শাসনযুগের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে সুরি প্রাসাদটি ছিল রিয়ুকু সংস্কৃতি ও সভ্যতার প্রতীক। প্রাসাদটির নির্মাণশৈলীতে চীন ও জাপান উভয় দেশেরই প্রভাব রয়েছে।

১৮৭৯ সালে রিয়ুকু রাজাকে নির্বাসন পাঠিয়ে এই শাসনামলকে বিলুপ্ত করে একে ওকিনাওয়ার প্রশাসনিক প্রদেশের সাথে সংযুক্ত করা হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের একেবারে শেষভাগে ১৯৪৫ সালে মার্কিন বাহিনীর হামলায় সুরি প্রাসাদ পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়। অনেক বহুমূল্য নথি ও শিল্প নিদর্শনও সেই ঘটনায় নষ্ট হয়ে গিয়েছিল।

পরবর্তীতে পুরো প্রাসাদটিকেই আগের আদল ঠিক রেখে আবার নির্মাণ করা হয়। ১৯৯২ সালে পুনঃনির্মিত প্রাসাদটি পর্যটন স্থাপনা হিসেবে জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়।

তারপর থেকে প্রতিবছর বিপুল সংখ্যক দর্শনার্থী রিয়ুকু শাসনামলের স্মৃতি বিজড়িত এই প্রাসাদটি ভ্রমণ করেছেন।

কিন্তু বৃহস্পতিবারের অগ্নিকান্ডে প্রসাদটি তার জীবদ্দশায় দ্বিতীয়বারের মত ধ্বংসের মুখোমুখি হল। তবে ওকিনাওয়ার মেয়র দৃঢ়ভাবে বলেছেন, অতীতের মত আবারও প্রাসাদটি নতুন করে ঘুরে দাঁড়াবে।